প্রেমিকার রাতের ঘুম হার করুন, এই আইডিয়া গুলো প্রয়োগ করে

প্রেমিকার রাতের ঘুম হার করুন, এই আইডিয়া গুলো প্রয়োগ করে

হাই গাইস ওয়েলকাম ব্যাক। বন্ধুরা কারো বাড়িতে চুরি করা আর কারো মন চুরি করা সেম ব্যাপার। চুরি করতে হলে যেমন আপনাকে তালা খুলতে হবে সীদ কাটতে হবে। মন চুরি করতেও তেমন আপনাকে সেই মানুষটার মনে ঢুকতে হবে, সেই মানুষটার ভাবনায় ঢুকতে হবে, তার মনের তালা আপনাকে খুলতে হবে। এজন্য আজকের আলোচনাতে আমি আপনাদের এমন ৪টি ধাসু আইডিয়া বলব যে আইডিয়া গুলো যদি আপনি ভালো ভাবে ওয়ার্কআউট করতে পারেন, তাহলে মেয়র রাতের ঘুম হারাম হয়ে যাবে আপনার কথা ভাবতে ভাবতে। যদি এই ৪টি কাজ আপনি ভালো ভাবে করতে পারেন, তাহলে আপনি মেয়ের ভাবনায় ঢুকে যেতে পারবেন, মেয়ে আপনাকে নিয়ে ভাবতে বাধ্য হবে। 

১। তার বন্ধু বান্ধবের সঙ্গে বন্ধুত্ব করুন। বন্ধুরা আপনার কাজ হলো আপনার পছন্দের মানুষের মনে ঢোকা, তার ভাবনায় ঢোক, সে যেন আপনাকে নিয়ে ভাবে এমন কিছু করা, আপনাকে নিয়ে ভাবতে ভাবতে যেন তার ঘুম হারাম হয়ে যায় এমন কিছু করা। এটাই তো আপনাকে করতে হবে বা এটাই তো আপনি চান তাইনা? তো এমন কিছু করতে হলে তো আপনাকে অব্যশই তার পাশে থাকতে হবে, তার সাথে আলাপ করতে হবে কথাবার্তা বলতে হবে, তার হেল্প করতে হবে বারবার তার নজরে পড়তে হবে, সে যেন আপনাকে সব সময় দেখে এমন সিচুয়েশন ক্রিয়েট করতে হবে, তাই নয় কি। তো এর জন্য সবচাইতে বেস্ট উপায় হলো তার যে ফ্রেন্ড সার্কেল আছে তার যে বন্ধু-বান্ধব আছে, যাদের সাথে সে চলাফেরা করে, তাদের সাথে আপনিও বন্ধুত্ব করুন। এতে করে না তার আপনাকে সন্দেহ হবে, আর না আপনার প্ল্যান সে বুঝতে পারবে। আপনি পরিকল্পিতভাবে প্ল্যান করে তাকে পটাতে পারবেন তার মনে ঢুকতে পারবেন, কেউ আপনাকে আটকাতে পারবে না। এজন্য যেকোনো ভাবে ওই মেয়ে বা ছেলের বন্ধু-বান্ধবের সঙ্গে আপনিও বন্ধুত্ব করুন। মেয়ের ভাবনাই ঢোকা খুব সহজ হবে। 

নাম্বার -২: সিমিলারিটি দেখান। উদাহরণ দিয়ে বুঝিয়ে বলছি মনোযোগ সহকারে শুনুন ঠিক আছে? মনে করুন: আপনি চায়না গেছেন। এয়ারপোর্ট থেকে বের হয়ে দেখলেন যে দুইটা ট্যাক্সি দাঁড়িয়ে আছে একটার ড্রাইভার আপনার দেশের আরেকটা ড্রাইভার চায়নার। এখন আপনি কোন টেক্সিতে যাবেন? অবশ্যই আপনার দেশীয় ড্রাইভার এর ট্যাক্সিতে যাবেন। মনে করুন: আপনি কোন একটা অফিসের বস। দুইটা ছেলে আসলো আপনার কাছে জবের জন্য। দুজনেই সেম যোগ্যতার অধিকারী, দুজনেরই সেম কোয়ালিফিকেশনস আছে। দুজনের মাঝে একটা ছেলে আপনার গ্রামের। এখন বলুন আপনি কাকে জবটা দেবেন? অবশ্যই যে আপনার গ্রাম থেকে এসেছে তাকে। তো দুইটা উদাহরণেই আমাদের মনের টান, মনের ভাবনাটা ছিল সিমিলারিটির কারণে। মানে আপনার সঙ্গে মিল থাকার কারণে। তো যখন আপনি মেয়েকে বোঝাবেন যে আপনিও তার মতোই, তার মতোই ভাবেন, তার মত সবকিছু পছন্দ করেন। তখন মেয়ের রাতের ঘুম হারাম হয়ে যাবে আপনার কথা ভাবতে ভাবতে। আপনি শুধু যে কোনভাবে তাকে বোঝান, তাকে দেখান, যে আপনিও তার মতোই ভাবেন আপনিও তার মতোই শুধু এতোটুকু করুন। 

নাম্বার -৩: অবাক হওয়ার মত কিছু করুন। বন্ধুরা আপনারা তো ইতিহাসের কোন না কোন ঘটনা অবশ্যই শুনেছেন। তো এ পর্যন্ত যতগুলো ঘটনা শুনেছেন। তার মাঝে কোন কোন ঘটনা গুলো আপনাদের মনে গেঁথে আছে? খেয়ার করে দেখুন যে ঘটনাগুলো আপনার মন ছুঁয়েছে, যেই কথাগুলো আপনাকে অবাক করেছে, সেই ঘটনাগুলো আপনার এখনো মাইন্ডে আছে, এখনো মনে আছে। আমিও এক জ্যাক্টলি এটাই বোঝাতে চাচ্ছি যে, যদি কোন মেয়ের রাতের ঘুম হারাম করতে চান, তার মাইন্ডে থাকতে চান, তার মনে সারা জীবনের জন্য গেঁথে যেতে চান, তাহলে আপনিও এমন অবাক করা ঘটনা ঘটান। যেমন ধরুন: মেয়ে যেখানে যেখানে যায়, অনাকাঙ্খিত ভাবে আপনাকেও সেখানে দেখে ফেলে। বস সিনেমার জিতের মতো করে মেয়েকে ইচ্ছেমতো ঝাড়লেন পড়ে গিয়ে সরি বললেন। মানে বুঝতেই তো পারছেন আমি কি বলতে চাচ্ছি। বিভিন্ন সিনেমায় দেখেন না লাইক দ্যাট। মানে মেয়ের মনে যেন আপনার মুখটা সেভ হয়ে যায় এমন কিছু আর কি। 

নাম্বার -৪: ধরি মাছ না ছুঁই পানি, সাপ মরবে কিন্তু লাঠি ভাঙবে না। এই প্রবাদগুলো তো অবশ্যই শুনেছেন। আপনাকেও একটু এমন হতে হবে। বন্ধুরা গবেষকরা বলেন যে আমাদের মাইন্ড সব সময় যেকোন বিষয় ক্লিয়ার থাকতে চায়, সব কিছু ক্লিয়ার বুঝতে চায়। যেকোন কাজ বা কথাকে আমাদের মাইন্ড পরিষ্কার ভাবে বুঝতে পছন্দ করে। তো যখন আপনি মাছ ধরবেন কিন্তু পানি ছোবেন না। মানে মেয়েকে ইম্প্রেস করবেন পটাবেন মেয়ের রাতের ঘুম হারাম করবেন কিন্তু মেয়ের পিছে ঘুরবেনা, মেয়েকে বুঝতে দিবেন না, তাকে মাঝে মাঝে ইগনোর করবেন, মানে সাপ মারবেন লাঠি ভাঙবেন না। তখন তার মাইন্ড কনফিউশনে পড়ে যাবে, তার মাইন্ড আপনাকে পরিষ্কার বুঝতে পারবে না। আর যখন পরিষ্কার বুঝতে পারবে না তখন তো আপনাকে নিয়ে ভাবতে বাধ্য। রাতের ঘুম হারাম হয়ে যাবে আপনাকে নিয়ে ভাবতে ভাবতে যে ছেলেটা বা মেয়েটা এমন কেন, কেন আমি তাকে বুঝতে পারছি না, সে কি সত্যিই আমায় পছন্দ করে? না তাহলে এমন করে কেন? এভাবে আপনাকে নিয়ে ভাবতে ভাবতে কখন যে আপনার প্রেমে পড়ে যাবে সে নিজেই টের পাবেনা। কারণ আমাদের মাইন্ড সবকিছু পরিষ্কার ভাবে বুঝতে পছন্দ করে। তো বন্ধুরা আলোচনাটি কেমন লাগলো তা অবশ্যই কমেন্ট করে জানাবেন। পরবর্তীতে নতুন কোনো আলোচনা নিয়ে আবার দেখা হবে সে পর্যন্ত সবাই ভালো থাকবেন সুস্থ থাকবেন এবং নিজের খেয়াল রাখবেন গুড বাই। 

Leave a Comment