প্রেমিকা আপনার জন্য সারাক্ষণ ছটফট করবে শুধু এই কাজগুলো করুন

প্রেমিকা আপনার জন্য সারাক্ষণ ছটফট করবে শুধু এই কাজগুলো করুন

হাই গাইস ওয়েলকাম ব্যাক। বন্ধুরা আমার একটা ফ্রেন্ড আমায় সব সময় বলে, যে ভালোবাসা পাওয়ার মাঝে স্বার্থকতা নাই। কেউ যেন তোকে সারা জীবন মনে রাখে,তার লাইফের বিশেষ বিশেষ অংশে যেন তোর হাত, তোর অবদান থাকে এমন কিছু করার মাঝেই স্বার্থকতা কথাটা একদম সত্যি। কোন মেয়ের লাইফে এমন কিছু স্মৃতির ভান্ডার রেখে দিন, যেখান থেকে সে এক মিনিট নড়চড় হলেই যেন আপনার কথা মনে পড়ে। তার লাইফে এমন কিছু করুন যাতে সে একবার হলেও বসে ভাবে, যে না! ছেলেটা আসলেই একটা মাল ছিল। তো বন্ধুরা এই সব কিছুর উপর ভিত্তি করে আজ আমি কিছু কথা বলব, কিছু টেকনিক কিছু স্মৃতি বানানোর কৌশল আপনাদের শেখাবো। যদি এই কৌশল বা এই টেকনিকগুলো আপনি ইউজ করেন তাহলে আমার মনে হয় আপনিও আপনার সেই কাঙ্খিত মানুষটির লাইফে অনেক বড় জায়গা দখল করে নিয়ে থাকতে পারবেন, মেয়ে সব সময় আপনার জন্য ছটফট করবে এমন এক পরিস্থিতি তৈরি করতে পারবেন।

১। নিয়মিত কিছু কিছু অভ্যাস পড়ান। বন্ধুরা যদি আপনি আপনার মনের মানুষের মনে আপনার ছাপ রেখে যেতে চান, সে যেন আপনাকে মনে করতে বাধ্য হয় এমন কিছু করতে চান তাহলে এটা সব থেকে ভালো উপায় যে আপনি আপনার সাথে যুক্ত কোন কিছুর অভ্যাস ধরিয়ে দিন। যেমন: প্রায় প্রায় তাকে গান শোনানো অথবা তার থেকে শোনা, ইন্টারেস্টিং কোন গল্প শোনানো বা তার থেকে সোনা। সেটা হতে পারে লাভ স্টোরি বা ইতিহাসের কোনো ঘটনা বা ধর্মের কোন ঘটনা অথবা প্রত্যেকদিন গুড মর্নিং জানিয়ে তাকে ঘুম থেকে ডাকা, মাঝে মাঝে ঘুরতে নিয়ে যাওয়া, এভাবে কিছু কিছু অভ্যাস তাকে আপনি ধরিয়ে দিন, যাতে আপনি তার লাইফের বিশেষ একটা জায়গা দখন করে থাতে পারেন। আর যখন আপনি কোন কিছুর অভ্যাস বানিয়ে দিবেন, তখন আপনি এমনিতেই তার লাইফের সাথে যুক্ত হয়ে যাবেন। 

২। আদরের মাঝে স্পেশালিটি রাখুন। বন্ধুরা এই পদ্ধতিটা যাদের গার্লফ্রেন্ড বা বয়ফ্রেন্ড আছে বা যাদের আদর করার সুযোগ আছে তাদের জন্য বিশেষ করে। তাহলে আপনার আদর করার মাঝে একটা স্পেশালিটি রাখতে হবে। মানে একটু সুযোগ পেয়েছেন আর শুরু করেছেন কামড়াকামড়ি, ক্ষুধার্ত বাঘের মতো লাফিয়ে পড়েছেন, জোর পূর্বক বিভিন্ন জায়গায় হাত দিচ্ছেন এমনটা যেন না হয়। তাকেও হারাবেন এবং তার মন থেকেও হারিয়ে যাবেন। এজন্য যখনই আদরের সুযোগ পাবেন আপনার আদর যেন তার জন্য স্পেশাল হয়ে ওঠে খেয়াল রাখবেন। যেমন: আপনার আদরটা যেন সিনেমার হিরোদের মত রোমান্টিক হয়, কারণ সব মেয়ে চায় সিনেমার হিরোর মতো তাকে তার কাছের মানুষ আদর করুক এবং সে যেটাতে সংকোচ বোধ করবে সেটা কখনো করতে যাবেন না। সুযোগ পেয়েছেন কপালে একটা চুমু খান, তার হাতে একটা চুমু খান আর মিষ্টি করে বলুন আমি তোমায় অনেক ভালোবাসি। 

৩। তাকে যেকোন একটা প্রিয় নামে ডাকুন। ভালবাসার মানুষটি যখন আদর করে নাম ধরে ডাকে, তখন যতবারই সে নাম ধরে ডাকে তাতবারই শুনতে খুব ভালো লাগে। আপনার লাইফেও হয়তো এমন হয়েছে যে কিছু কিছু মানুষের মুখ থেকে আপনার কিছু কিছু ডাকনাম শুনতে খুব ভাল লাগে। তো আপনিও আপনার পছন্দের মানুষটিকে ভেবেচিন্তে, ভালোবেসে, মন থেকে যেটা আসে, এমন একটা নাম ধরে ডাকুন। যে নামে শুধু আপনিই তাকে ডাকবেন। ভাবছেন ইন্টারনেট থেকে কোন নাম দেখবেন বা আমি বলে দিব এমন না। আপনাদের প্রতিদিনের কথাবার্তা, কাজকর্ম, তার পাগলামি, তার অভিমান, সে আপনাকে কতটা ভালোবাসে, এই সবকিছুর উপর ভাবলেই আপনি কোন না কোন নাম অবশ্যই পাবেন। কিউটি একটা নাম আপনি আপনার পছন্দের মানুষটিকে দিয়ে দিবেন, যে নামে আপনি রোজা তাকে ডাকবেন এবং এটা আপনার পছন্দের মানুষটির জীবনে অনেক বড় একটা ইফেক্ট তৈরি করে দিবে, যার কারণে সে কখনোই আপনাকে ভুলতে পারবে না এবং আপনার জন্য তার মন অবশ্যই ছটফট করবে। তো বন্ধুরা আলোচনাটি কেমন লাগলো তা অবশ্যই কমেন্ট করে জানাবেন। পরবর্তীতে নতুন কোনো আলোচনা নিয়ে আবার দেখা হবে সে পর্যন্ত সবাই ভালো থাকবেন সুস্থ থাকবেন এবং নিজের খেয়াল রাখবেন গুড বাই।

Leave a Comment