ভালোবাসার মাঝে ঝগড়া হলে ৫টি লাভ আছে সেগুলো কি কি জেনে নিন

ভালোবাসার মাঝে ঝগড়া হলে ৫টি লাভ আছে সেগুলো কি কি জেনে নিন-

হাই গাইস! কেমন কাটছে আপনাদের দিনকাল? যাদের গার্লফ্রেন্ড আছে তার যতোটা ভালো থাকে ঠিক ততোটায় প্যারার মধ্যেও থাকে। আর যাদের গার্লফ্রেন্ড নাই তারা যদিও একা বাট তারপরও এতোটা প্যারার মধ্যে নাই সেদিক থেকে তারাই ভালো আছে। তো যাই হোক যারা রিলেশনে আছেন তাদের মাঝে কমন যে প্রবলেম সেটা হলো ঝগড়া। তো বন্ধুরা আজকে আমরা আলোচনা করবো এই ঝগড়া নিয়ে। বন্ধুরা প্রতিটা রিলেমনের মাঝেই কিন্তু ঝগড়া হয়। তো এর মানে এটা নয় যে কেউ আর সম্পর্ক করবে না। মূলত ঝগড়ার মাঝেই ভালোবাসা লুকিয়ে থাকে। শুধু তাই নয় ভালোবাসার মাঝে মায়া, টান কতোটা ভালোবাসেন এসব কিছু কিন্তু তখনি বোঝা যায় যখন তার সাথে আপনার ঝগড়া হয়। আর এই ঝগড়া থেকে এমন আর কি কি লাভ পাওয়া যায় তেমন পাঁচটি লাভের কথা বিনাপানির পক্ষ্য হতে আমি সফিক আজ আপনাদের জানাবো।

১। বন্ধুরা ঝগড়া কিন্তু সেই সম্পর্কের মধ্যেই হয় যেখানে একজন আর একজনকে মন থেকে ভালোবাসে এবং দুজন দুজনার সাথে সারা জীবন থাকার অঙ্গীকার করে। কিন্তু যেহেতু দুজনার চিন্তা ধারা মন মান-মানসিকতা এক রকম নয়। এজন্য সম্পর্ক টিকে রাখার জন্য তারা বিভিন্ন মতামত বা প্রবলেম কেউ এডজাস্ট করতে থাকে। আর সেই ফাকেই তাদের মাঝে কিছু ঝামেলা বা ঝগড়া হয়ে থাকে। এমত-অবস্থায় যদি আপনার গার্লফ্রেন্ডের সাথে আপনার ঝগড়া হয় তাহলে এর অর্থ হলো যে আপনার গার্লফ্রেন্ড আপনার সাথে মন থেকে কানেক্টেড হচ্ছে। মানে আপনাকে সত্যিই ভালোবাসে। যদি তার অভিনয় করা বা শুধু দেহের চাহিদা মেটানোর ইচ্ছা থাকতো তাহলে সে আপনার প্রতিটি কথায় মেনে নিতো এবং তার কাজ বের করে নিয়ে সে আপনাকে ছেড়ে চলে যেতো। তো বন্ধুরা মোস্ট অফ দা টাইম আপনার গার্লফ্রেন্ডের সাথে ঝগড়া হওয়ার কারণ এটাই। যে সে আপনাকে সত্যিই ভালোবাসে আর তাই একটু বেশি কেয়ার করার চেষ্টা করে। 

২। যখন আপনার গার্লফ্রেন্ডের সাথে আপনার ঝগড়া হয় এবং কথা বলা বন্ধ হয়ে যায়। তখন কিন্তু দুজনার মাইন্ডেই চলতে থাকে যে এখন কথা হবে কিনা? কখন কথা হবে? কিভাবে কথা হবে? না জানি কতোটা রাগ করে বাসে আছে পাগলটা। এভাবে দুজনই প্রত্যেকটা সেকেন্ড একে অন্যকে মিস করতে থাকে এবং তখনি দুজন দুজনার প্রয়োজনীয়তা বুঝে আসে। বন্ধুরা একবার চিন্তা করে দেখুন যে যদি আপনার সম্পর্কের মধ্যে সবকিছু নরমাল থাকে। কখনো কোন ঝগড়া না হয় কোনো কথার কাটাকাটিও না হয়। তাহলে কি আপনার সম্পর্কের মাঝে কোন কিছু মজার থাকবে? আপনার সম্পর্কটা একটু বিরক্তিকর বা এক ঘেয়ে হয়ে যাবে না? তো ঝগড়ার মাধ্যমে ভালোবাসার মধ্যে একটা ইন্টারেস্ট জমে থাকে। একটা মজার ব্যাপার স্যাপার থাকে। এর অর্থ কিন্তু এই নয় যে আমি আপনাদের সব সময় ঝগড়া করতে বলছি হ্যাঁ আমি এটা বলছি যে যদি সম্পর্কের মাঝে টুকটাক ঝগড়া হয় তাহলে সেটা নিয়ে ভয় পাওয়ার কিছু নেই। 

৩। বন্ধুরা ভালোবাসার মাঝে ঝগড়া বা কথা কাটাকাটি হওয়ার কারণে দুজনার মাঝখানে আন্ডার্স্ট্যান্ডিং বেড়ে যায়। আপনারা জানেন কিনা যে একটা গণনা করা হয়েছিলো এক হাজার কাপলস মানে এক হাজার জুটির উপর। তো সেই গণনায় দেখা গেছে যে যেই জুটির মধ্যে একটু ঝগড়া বেশি হয়। তারা বেশি ভালো থাকে তাদের সম্পর্কটা বেশি মধুর হয়। ঐ সমস্ত জুটির চাইতে যারা কথা কাটাকাটি বা ঝগড়া হওয়ার ভয়ে কথা লুকিয়ে রেখে চুপ থাকে। তো বন্ধুরা কথা কাটাকাটি বা মিষ্টি ঝগড়ার মাধ্যমে যে ভালোবাসা বেড়ে যায়। একে অন্যকে ভালো ভাবে বোঝা যায় তা একটা গণনাতেই পাওয়া গেছে। এজন্য আপনি আপনার গার্লফ্রেন্ডের কাছে কোন কথাই লুকাবেন না। যদি সে কথার কারণে হয়তো একটু ঝগড়া হবে। বাট এর দ্বারা আপনাদের মাঝে মিস আর্ন্ডাস্ট্যান্ডিং মানে ভুল-বোঝাবুঝি হবে না। বন্ধুরা ঝগড়া হলে সেটা একটু পরে থেমে যায় বা ভালো হয়ে যায়। কিন্তু যদি ভুল বোঝাবুঝি হয় তাহলে পুরো সম্পর্কটাই নষ্ট হয়ে যায়। এবার চলুন পরের ফায়দায়।

৪। বন্ধুরা জোসফ কৃনি নামের একজন লেখক তার বই ক্রুশিয়াল কনর্ভাসেশনে বলেছেন যে, যে ব্যক্তি তার লাভারের কাছে কোন কথা গোপন করে এই ভয়ে যে তাদের মাঝে ঝগড়া হবে বা রিলেশন নষ্ট হয়ে যাবে। তাদের মধ্যে ধীরে ধীরে এটাচমেন্ট কম হয়ে যাবে। মানে একজন অন্য জনের হাতে থাকবে না আয়ত্যে থাকবে না যার যার মনে সেই থাকবে। বন্ধুরা এই অ্যাটাচমেন্ট কম হয়ে যাওয়ার ক্ষতিটা হলো যে আপনার গার্লফ্রেন্ড আস্তে আস্তে অন্য কারো টাচে এসে যাবে। অন্য কারো পাল্লায় পরে যাবে এবং তখন আপনার কষ্ট ৩ গুণ বেড়ে যাবে। এজন্য লাভারের কাছে কোন কথা গোপন রাখবেন না যদিও ঝগড়া হয়। তারপরও আপনাদের কোন কিছুই হবে না যদি আপনারা দুজন দুজনকে সত্যিকারে ভালবেসে থাকেন। বাট শুধু এতোটুকুই মাথায় রাখবেন যে অন্যায় করা বা ভুল করাটা যেন আপনার অভ্যাস না হয়। 

৫। বন্ধুরা মন থেকে ভালোবাসার অর্থই হলো তাকে নিয়ে সারাটা জীবন কাটানো মানে বিয়ে-শাদী, বাচ্চা-কাচ্চা এই আর কি। তো সে ক্ষেত্রে মেয়েটা আসলে আপনার জন্য কতটা পারফেক্ট বা আপনি তার সাথে সারাজীবন কাটাতে পারবেন কিনা। সেটা বোঝার একমাত্র উপায় হলো ঝগড়া। কারণ ঝগড়ার সময়ই মানুষ প্রচন্ড রেগে থাকে। আর রাগের মাথাতে কোনো মানুষকে যে অবস্থায় দেখা যায় সেটাই হলো সেই মানুষটির আসল রূপ। এজন্য যখন ঝগড়া হবে তখন শুধু তাকে ভালো করার চেষ্টায় করবেন না। সঙ্গে এটাও খেয়াল করবেন যে এই মেয়ের সাথে আপনার ফিউচার লাইফ এক্সপেইন করাটা সম্ভব কিনা? যদি বেশি রাগী হয় বদমেজাজী হয় আপনার কোনো কথা না বুঝে অযথা রাগ করে। তাহলে এমন মেয়ে থেকে দূরে থাকাই বেটার। তো ঝগড়া থেকেই মূলত আপনি কোন মানুষের আসল রূপ বুঝতে পারবেন। তো বন্ধুরা এই ছিল আমাদের আজকের ঝগড়ার মাঝের ফায়দা বা লাভ। যদি আলোচনাটি ভালো লাগে তাহলে অবশ্যই শেয়ার কমেন্ট করে যেতে ভুলবেন না। আলোচনাটি শেষ পর্যন্ত পড়ার জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ। ভাল থাকবেন সুস্থ থাকবেন। বাই। 

Leave a Comment